ইতিহাস

জেরুজালেম কর্তৃত্বের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

জেরুজালেমের পুরনো শহর বা আদি জেরুজালেম হল আধুনিক জেরুজালেম শহরের অভ্যন্তরে অবস্থিত ০.৯ বর্গ কি.মি. (০.৩৫ বর্গ মাইল) আয়তন বিশিষ্ট দেয়ালঘেরা একটি অঞ্চল। এই পুরানো শহরটি ধর্মীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু স্থানের অবস্থানস্থল নিয়ে গঠিত। এগুলো হল মুসলমানদের কাছে ডোম অব দ্য রক ও আল-আকসা মসজিদ, ইহুদিদের কাছে টেম্পল মাউন্ট ও পশ্চিম দেয়াল এবং খ্রিষ্টানদের কাছে চার্চ অব দ্য হলি সেপালচার। ১৯৮১ সালে এই অঞ্চলটি ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়।


জেরুজালেমের পুরনো শহরটি চারটি অসমান অংশে বিভক্ত। তবে বর্তমান অবস্থাটি ১৯ শতক থেকে চালু হয়েছে। বর্তমানে শহরটি মোটামুটিভাবে মুসলিম মহল্লা, খ্রিষ্টান মহল্লা, ইহুদি মহল্লা ও আর্মেনীয় মহল্লা নামক ভাগে বিভক্ত। ১৯৪৮ সালের আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর পুরনো শহরটি জর্ডান কর্তৃক অধিকৃত হয়। ১৯৬৭ সালে ছয়দিনের যুদ্ধে টেম্পল মাউন্টের উপর দুপক্ষের মধ্যে মুখোমুখি লড়াই হয়। এসময় ইসরায়েল পূর্ব জেরুজালেমের বাকি অংশসহ পুরনো শহর দখল করে নেয় এবং পশ্চিম অংশের সাথে একীভূত করে পুরো এলাকাকে ইসরায়েলের অধিগত করে নেয়। বর্তমানে পুরো এলাকাটি ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণাধীন রয়েছে এবং তারা একে ইসরায়েলের জাতীয় রাজধানী হিসেবে বিবেচনা করে।

১৯৮০ সালের জেরুজালেম আইন নামক আইন যেটিতে পূর্ব জেরুজালেমকে কার্যকরভাবে ইসরায়েলের অংশ ঘোষণা করা হয় তা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ প্রস্তাব ৪৭৮ দ্বারা বাতিল ঘোষণা করা হয়। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পূর্ব জেরুজালেমকে অধীকৃত ফিলিস্তিনি অঞ্চলের অংশ হিসেবে গণ্য করে।

জেরুজালেমের ইতিহাস প্রায় ছয় হাজার বছরের পুরানো। ধারনা করা হয় ৩৫০০ খৃষ্ট পূর্বাব্দে শহরটি প্রথম প্রতিষ্ঠা হয়। এরপরে বিভিন্ন জনগোষ্ঠী এটি শাসন করে। ৬১০ খৃষ্টাব্দে হযরত মুহম্মদ (সাঃ) এর নবুয়ত লাভের মাধ্যমে ইসলাম ধর্মের প্রচার শুরু হয়। এর পরবর্তী ১৪০৭ বছরের মধ্যে ১১২৭ বছরই মুসলমানরা জেরুজালেমে কর্তৃত্ব করে। বাকী ২৩০ বছর সময় পারসিয়ান, খৃষ্টান ও ইহুদীরা জেরুজালেমে কর্তৃত্ব করে। বর্তমানে এটি ইজরায়েলের ইহুদীদের দখলে রয়েছে। আমেরিকা-রাশিয়া সহ ইজরায়েলের কয়েকটি ঘনিষ্ট রাষ্ট্র ব্যতিত আর কেহ এটি সমর্থন করে না।

বাইবেল অনুযায়ী, খ্রিষ্টপূর্ব ১১শ শতকে রাজা দাউদ (সম্ভাব্য হযরত দাউদ আঃ) এর জেরুজালেম জয়ের পূর্বে শহরটি জেবুসিয়দের বাসস্থান ছিল। বাইবেলের বর্ণনা মতে এই শহর মজবুত নগরপ্রাচীর দ্বারা সুরক্ষিত ছিল। রাজা দাউদ কর্তৃক শাসিত শহর যেটি দাউদের শহর বলে পরিচিত তা পুরনো শহরের দেয়ালের দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থিত। তার পুত্র রাজা সুলায়মানের (সম্ভাব্য হযরত সুলায়মান আঃ) শহরের দেয়াল সম্প্রসারিত করেন। এরপর ৪৪০ খ্রিষ্টপূর্বের দিকে পারস্য আমলে নেহেমিয়া ব্যবিলন থেকে ফিরে আসেন ও এর পুনর্নির্মাণ করেন। ৪১-৪৪ খ্রিষ্টাব্দে জুডিয়ার রাজা আগ্রিপ্পা “তৃতীয় দেয়াল” নামক নতুন নগরপ্রাচীর নির্মাণ করেন।

৭ম শতকে (৬৩৭ সালে) খলিফা উমর ইবনুল খাত্তাবের শাসনামলে মুসলিমরা জেরুজালেম জয় করে। খলিফা উমর একে মুসলিম সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করে নেন। তিনি শহরের বাসিন্দাদের নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দিয়ে চুক্তিবদ্ধ হন। জেরুজালেম অবরোধের পর সফ্রোনিয়াস খলিফা উমরকে স্বাগতম জানান। কারণ জেরুজালেমের চার্চের কাছে পরিচিত বাইবেলের একটি ভবিষ্যতবাণীতে “একজন দরিদ্র কিন্তু ন্যায়পরায়ণ ও শক্তিশালী ব্যক্তি” জেরুজালেমের খ্রিষ্টানদের রক্ষক ও মিত্র হিসেবে আবির্ভূত হবেন – এমন উল্লেখ ছিল। সফ্রোনিয়াস বিশ্বাস করতেন যে সাদাসিধে জীবনযাপনকারী বীর যোদ্ধা উমর এই ভবিষ্যতবাণীকে পূর্ণ করেছেন।

জেরুজালেমের দীর্ঘ ইতিহাসে এটি দুইবার বিজিতদের দ্বারা ধ্বংস হয়, ২৩ বার শত্রুপক্ষ দ্বারা অবরুদ্ধ হয়, ৫২ বার আক্রমনের শিকার হয়, এবং দখল-বেদখল হয় ৪৪ বার। নীচে পুরানো জেরুজালেম শহরের কর্তৃত্বের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরা হলো-

রোমান নিয়ন্ত্রন (৭০ – ৩২৪ খৃষ্টাব্দ)
৭০ খৃষ্টাব্দ- রোমানদের দ্বারা জেরুজালেম ধ্বংস।
১৩৫ খৃষ্টাব্দ- রোমান শহর হিসেবে জেরুজালেমের বিনির্মান।

বাইজান্টাইন নিয়ন্ত্রন (৩২৪ – ৬৩৮ খৃষ্টাব্দ)
৩৩৫ খৃষ্টাব্দ- চার্চ অব দ্য হলি সেপালচার নির্মান।
৬১৪ খৃষ্টাব্দ – পার্সিানদের জেরুজালেম দখল
৬২৯ খৃষ্টাব্দ – বাইজান্টাইন খৃষ্টানদের দ্বারা জেরুজালেম পূর্নদখল।

প্রথমবারের মতো মুসলিম নিয়ন্ত্রন (৬৩৮ – ১০৯৯ খৃষ্টাব্দ)
৬৩৮ – দ্বিতীয় খলিফা হযরত উমর (রাঃ) জেরুজালেমে প্রবেশ করেন।
৬৬১ – ৭৫০ খৃষ্টাব্দ- উমাইয়া খেলাফতের নিয়ন্ত্রন
৬৯১ খৃষ্টাব্দ- ডোম অব দ্য রক নির্মান।
৭৫০ – ৯৭৪ খৃষ্টাব্দ – আব্বাসীয়া খেলাফতের নিয়ন্ত্রন।

ক্রুসেডারদের নিয়ন্ত্রন (১০৯৯ – ১১৮৭ খৃষ্টাব্দ)
১০৯৯ খৃষ্টাব্দ- প্রথম ক্রুসেডার বাহিনী জেরুজালেম দখল করে।

সালাহউদ্দিন আইয়ুবী নিয়ন্ত্রন (১১৮৭ – ১২৫৯)
১১৮৭ খৃষ্টাব্দ- সালাহউদ্দীন আইয়ুবী ক্রুসেডারতের থেকে জেরুজালেম দখল করেন।
১১২৯ – ১২৪৪ খৃষ্টাব্দ- ক্রুসেডাররা দুইবার স্বল্প সময়ের জন্যে জেরুজালেম দখল করে।

মামলুক নিয়ন্ত্রন (১২৫০ -১৫১৬)
১২৫০ খৃষ্টাব্দ- মুসলিম খলিফা জেরুজালেমের বহিঃদেয়াল ভেঙ্গে দেন।

অটোম্যান নিয়ন্ত্রন (১৫১৭ – ১৯১৭)

১৫১৭ খৃষ্টাব্দ- অটোম্যান সম্রাট জেরুজালেম দখল করেন।
১৫৩৮ – ১৫৪১ খৃষ্টাব্দ- অটোম্যান সম্রাট সুলেমান দ্য ম্যাগনিফিসেন্ট জেরুজালেমের দেয়াল পূনঃনির্মান করেন।
১৯১৭ খৃষ্টাব্দ- প্রথম বিশ্বযুদ্ধে বিজয়ের পরে বৃটেন তুরষ্কের অটোম্যান সাম্রাজ্যের কাছ থেকে জেরুজালেম দখল করে নেয়।

বিভক্ত নিয়ন্ত্রন (১৯৪৮ – ১৯৬৭)
১৯৪৮ খৃষ্টাব্দ- ইসরায়েল রাষ্ট্র গঠিত হয় বৃটেন ও আমেরিকার সহায়তায়। এ বছর আরব-ইসরায়েল যুদ্ধে জেরুজালেমের অর্ধেক সহ পুরনো জেরুজালেম জর্ডান কর্তৃক অধিকৃত হয়।

ইসরায়েলের দখল (১৯৬৭ – )
১৯৬৭ খৃষ্টাব্দ- আরব-ইসরায়েল যুদ্ধে ইসরায়েল পুরানো জেরুজালেমের অর্ধেক সহ পুরো জেরুজালেম আবার দখল করে নেয়। এখনো সে দখলদারিত্ব বজায় আছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।